কলা। Banana

কলাকে সাধারণত গ্রীষ্মকালীন ফল বলা হয়, তবে এটি সারা প্রায় বছরই উৎপাদন হয়ে থাকে। কলা মসৃণ এবং ঘন খোসাসহ একটি বাঁকা ফল। এগুলো সাধারণত পাকা অবস্থায় উজ্জ্বল হলুদ রঙের হয়, যদিও কিছু জাতের কলা সবুজ রঙের ও হয়ে থাকে। কলার স্বাদ তাদের পাকার উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। যখন সেগুলো সবুজ বা সবেমাত্র হলুদ হতে শুরু করে, তখন কলা গুলি কিছুটা কষ স্বাদের হয়ে থাকে৷ যেহেতু তারা আরও পাকে এবং ত্বক সম্পূর্ণ হলুদ হয়ে যায়, ফলে সেগুলি আরও মিষ্টি ও মধুর স্বাদ আনে। 

প্রাকৃতিক শক্তি-সমৃদ্ধ কলা পুষ্টিকর একটি ফল। এটি পটাশিয়ামের একটি ভালো উৎস, সাথে সাথে এতে রয়েছে খনিজ, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন C, B6, K, A  এবং ফোলেট। 

Multiple ripe bananas

কলার পুষ্টি (Nutrition’s) এবং স্বাস্থ্য উপকারিতা

কলা বিভিন্ন ভিটামিন ও খনিজ সমৃদ্ধ পুষ্টিকর একটি ফল, যা বিভিন্ন স্বাস্থ্যের উপকারিতা প্রদান করে।

একটি মাঝারি আকারের কলার পুষ্টি:

  • – ক্যালোরি: 105
  • – কার্বোহাইড্রেট: 27 গ্রাম
  • – ডায়েটারি ফাইবার: 3 গ্রাম
  • – চিনি: 14 গ্রাম
  • – প্রোটিন: 1 গ্রাম
  • – চর্বি: 0.4 গ্রাম
  • – Vitamin B6 (পাইরিডক্সিন): 0.4 মিলিগ্রাম (দৈনিক মূল্যের 22%)
  • – Vitamin C: 10.3 মিলিগ্রাম (দৈনিক মূল্যের 17%)
  • – ফোলেট (Vitamin B9): 24 mcg (দৈনিক মূল্যের 6%)
  • – পটাসিয়াম: 422 মিলিগ্রাম (দৈনিক মূল্যের 12%)
  • – ম্যাগনেসিয়াম: 32 মিলিগ্রাম (দৈনিক মূল্যের 8%)
  • – রিবোফ্লাভিন (Vitamin B2): 0.1 মিলিগ্রাম (দৈনিক মূল্যের 6%)
  • – নিয়াসিন (Vitamin  B3): 0.8 মিলিগ্রাম (দৈনিক মূল্যের 4%)

এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে কলার পুষ্টি উপাদান ফল পাকা এবং বিভিন্নতার উপর নির্ভর করে সামান্য পরিবর্তন হতে পারে। কলা পাকা হওয়ার সাথে সাথে তাদের স্টার্চ উপাদান শর্করায় রূপান্তরিত হয়, যা তাদের মিষ্টি এবং নরম করে তোলে।

ভিটামিন: কলা হলো  ভিটামিন C, B6, K, A সহ আরও অন্যান্য ভিটামিনের একটি ভালো উৎস। 

কলাতে থাকা ভিটামিন C অ্যাসকরবিক অ্যাসিড নামেও পরিচিত, যা শরীরের কোষগুলোকে ফ্রি র‍্যাডিক্যাল এর কারণের থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। এটি ইমিউন সিস্টেমকে সমর্থন করে এবং ত্বককে স্বাস্থ্যকর রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

কলায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন B6 পাওয়া যায় যা পাইরিডক্সিন নামে পরিচিত। এই ভিটামিনটি শরীরের অনেক এনজাইমেটিক প্রতিক্রিয়ার সাথে জড়িত, বিশেষ করে বিপাক এবং কার্বোহাইড্রেট। ভিটামিন B6 মস্তিষ্কের বিকাশ এবং কার্যকারীতার জন্য অপরিহার্য।

এই ফলে অল্প পরিমাণে ভিটামিন A এবং K উপস্থিত রয়েছে, যা শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। 

ভিটামিন B9- কলায় থাকা ফোলেট ভিটামিন B9 এর একটি ভালো উৎস যা কোষ বিভাজন এবং বৃদ্ধির জন্য অপরিহার্য। গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ফোলেট বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, কারণ এটি ভ্রূণের বিকাশকে সমর্থন করে এবং কিছু জন্মগত ত্রুটি প্রতিরোধে সহায়তা করে।

খনিজ: কলা বিভিন্ন প্রয়োজনীয় খনিজ গুলোর একটি ভালো উৎস যা শারীরিক ক্রিয়াকলাপকে সমর্থন করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

  • কলার অন্যতম প্রধান খনিজ হল পটাশিয়াম। এটি একটি ইলেক্ট্রোলাইট, যা সঠিক তরল ভারসাম্য, পেশী সংকোচন এবং স্নায়ু সংকেত বজায় রাখতে সহায়তা করে। পর্যাপ্ত পটাশিয়াম গ্রহণ হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য এবং রক্তচাপের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারে।
  • কলাতে উপস্থিত ম্যাগনেসিয়াম শরীরে শত শত জৈব রাসায়নিক বিক্রিয়ায় জড়িত। ম্যাগনেসিয়াম রক্তচাপ এবং রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।
  • কলায় থাকা ম্যাঙ্গানিজ কার্বোহাইড্রেট, অ্যামিনো অ্যাসিড এবং কোলেস্টেরল বিপাক সহ বিভিন্ন এনজাইমেটিক প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত। ম্যাঙ্গানিজ শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় বিশেষ অবদান রাখে।
  • কলায় থাকা ফসফরাস শক্তি উৎপাদন, DNA সংশ্লেষণ এবং বিভিন্ন সেলুলার প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত।
  • কলায় অল্প পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকে যা শক্তিশালী হাড় ও দাঁতের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। 
Bananas are held on the tree

কলা পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ একটি ফল, যা স্বাস্থ্যের জন্য বিশেষ সুবিধা প্রদান করে। Health benefits of eating Bananas.

হার্টের স্বাস্থ্য: কলায় থাকা উচ্চ পটাশিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে, হৃদরোগের উন্নতি করে স্ট্রোকের হাত থেকে রক্ষা করে।

পাচক স্বাস্থ্য: ফাইবার সমৃদ্ধ একটি ফল কলা, যা নিয়মিত অন্ত্রের গতি বাড়াতে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধে সহায়তা করে। ফাইবার সামগ্রী একটি স্বাস্থ্যকর অন্ত্রের মাইক্রোবায়োমকে সমর্থন করে।

এনার্জি বুস্ট: এই ফলে উপস্থিত কার্বোহাইড্রেট গুলি দ্রুত শক্তি সরবরাহ করে, যা শরীরকে দ্রুত শক্তি যোগায়।

ওজন নিয়ন্ত্রন: কলা ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে কারণ এগুলোর ক্যালরি তুলনামূলক ভাবে কম এবং তাদের ফাইবার সামগ্রীর কারণে উচ্চ তৃপ্তির মান রয়েছে, যা আপনাকে দীর্ঘ সময়ের জন্য পূর্ণ বোধ করতে সহায়তা করে।

মেজাজ বৃদ্ধি: কলায় থাকা ভিটামিন B6 সেরোটোনিন এবং ডোপামিন উৎপাদনে বিশেষ ভূমিকা রাখে, নিউরোট্রান্সমিটার মেজাজ নিয়ন্ত্রণ এবং মানসিক সুস্থতায় অবদান রাখে।

রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণ: কলার একটি কম গ্লাইসেমিক সূচক রয়েছে, যার মানে কলা অন্যান্য অনেক চিনিযুক্ত খাবারের তুলনায় রক্তে শর্করার মাত্রা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি ঘটায়।

হাড়ের স্বাস্থ্য:  ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ও ম্যাঙ্গানিজ এর মতো প্রয়োজনীয় খনিজ সরবরাহ করে, যা শক্তিশালী হাড় বজায় রাখতে এবং হাড়-সম্পর্কিত রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

ইমিউন সাপোর্ট ও ত্বকের স্বাস্থ্য: কলায় থাকা ভিটামিন C রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং সংক্রমণ ও অসুস্থতার বিরুদ্ধে শরীরকে রক্ষা করে। এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট গুলি কোলাজেন উৎপাদন প্রচার করে এবং অক্সিডেটিভ স্ট্রেস থেকে রক্ষা করে স্বাস্থ্যকর ত্বক করে তোলে।

গর্ভাবস্থায় কলার উপকারিতা: কলাতে প্রচুর পরিমাণে শর্করা, ডায়েটারি ফাইবার, প্রয়োজনীয় ফ্যাটি অ্যাসিড যেমন ওমেগা-৩ ও ওমেগা-৬, ভিটামিন C, ভিটামিন B-কমপ্লেক্স এবং ম্যাঙ্গানিজ, ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, আয়রন, তামা ও সেলেনিয়াম রয়েছে। এই সমস্ত পুষ্টি গর্ভাবস্থায় ভ্রূণের সুস্থ বিকাশে সহায়তা করে। কলা খাওয়া গর্ভাবস্থার কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া থেকেও মুক্তি দিতে পারে এবং মা ও শিশুর উভয়ের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী হতে পারে। কলা ফোলেটের একটি ভালো উৎস, যা শিশুর মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ড বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয়। 

রান্নায় ব্যবহার 

কলা কাঁচা অবস্থায় সবজি হিসাবে ব্যবহার করা হয় যা দিয়ে বিভিন্ন রকমের সুস্বাদু ও পুষ্টিকর খাবার তৈরি করা যায়। এবং পাকা অবস্থায় স্মুদি, মাফিন, প্যান কেক, ডেজার্ট, মিষ্টি, কাস্টার্ড, ক্রিম পাই, পুডিং, কলার চিপস, কলার স্প্লিট, জ্যাম, চাটনি আরও বিভিন্ন সুস্বাদু খাবার বানানো হয়। 

The banana tree has blossomed

কলার ক্ষতিকর দিক। Some Harmful Effects of Bananas.

কলার ক্ষতিকর দিক তুলনামূলক ভাবে বিরল, এবং বেশিরভাগ ব্যক্তি কোনো অসুবিধার সম্মুখীন না হয়ে কলা উপভোগ করতে পারে। আপনার যদি কলা খাওয়ার পরে কোনও অস্বাভাবিক লক্ষণ অনুভব করেন তবে ব্যক্তিগত পরামর্শের জন্য একজন চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করা ভাল।

অ্যালার্জি: কিছু মানুষের কলা থেকে অ্যালার্জি হতে পারে। অ্যালার্জির লক্ষণ গুলো হালকা ওরাল অ্যালার্জি সিন্ড্রোম (ঠোঁট, মুখ এবং গলাতে চুলকানি বা ফুলে যাওয়া) থেকে শুরু করে বিরল ক্ষেত্রে আমবাত, শ্বাস নিতে অসুবিধা আরও গুরুতর হতে পারে।

হাই সুগার: কলায় প্রাকৃতিক শর্করা রয়েছে যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ঝুঁকি পূর্ণ হতে পারে। তাই ডায়বেটিস রোগীদের কম পরিমান কলা খাওয়া উচিত। 

উচ্চ ক্যালরি: অন্যান্য ফলের তুলনায় কলায় তুলনামূলকভাবে বেশি ক্যালোরি রয়েছে। অতিরিক্ত পরিমাণে কলা খাওয়া কিছু ব্যক্তির ওজন বৃদ্ধির কারণ হতে পারে।

মাইগ্রেন: মাইগ্রেনের কিছু মানুষ দেখতে পারেন যে কলা খাওয়ার পর তাদের মাথা ব্যথা বেড়ে যায়। এটি টাইরামিনের উপস্থিতির কারণে হয়ে থাকে বলে মনে করা হয়। 

Share your love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *